1. admin@englishbangla24.com : admin :
কুড়িগ্রামে পুলিশের অপরাধ প্রতিরোধ ক্লিনিক চালু - English Bangla 24
শুক্রবার, ১২ জুলাই ২০২৪, ০৪:২৩ অপরাহ্ন
শিরোনাম:

কুড়িগ্রামে পুলিশের অপরাধ প্রতিরোধ ক্লিনিক চালু

Reporter Name
  • Update Time : সোমবার, ১১ সেপ্টেম্বর, ২০২৩
  • ২২৫ Time View
আতাউর রহমান বিপ্লব ,কুড়িগ্রাম।।কুড়িগ্রামে বিনা খরচ ও কম ভিজিটে পুলিশি সেবা মানুষের দোর গোড়ায় পৌছে দেয়ার লক্ষ্যে সকল অংশীজনের সমন্বয়ে জেলার ভুরুঙ্গামারীতে পুলিশের উদ্ভাবনী প্রয়াসে আয়োজিত হল ‘ক্রাইম প্রিভেনশন ক্লিনিক’।

রোববার বিকেলে উপজেলা হলরুমে ভূরুঙ্গামারী, নাগেশ্বরী ও কচাকাটা থানা এলাকা থেকে আগত প্রায় ২০০ জন নাগরিক ও সেবা প্রার্থীর বক্তব্য শুনেন ‘ক্রাইম প্রিভেনশন ক্লিনিক।

এসময় প্রধান অতিথি হিসেবে উপস্থিত ছিলেন, কুড়িগ্রাম জেলার বিজ্ঞ সিনিয়র জেলা ও দায়রা জজ মোঃ আলমগীর কবীর। বিশেষ অতিথি হিসেবে উপস্থিত ছিলেন, পরিচালক (প্রশাসন) (অতিরিক্ত জেলা ও দায়রা জজ) বিচার প্রশাসন প্রশিক্ষণ ইনস্টিটিউট জনাব শেখ মোঃ মুজাহিদ উল ইসলাম ও বিজ্ঞ চীফ জুডিশিয়াল ম্যাজিস্ট্রেট মোঃ আলমগীর কবির শিপন। এ সময় বিশেষজ্ঞ প্যানেলে উপস্থিত ছিলেন, ভূরুঙ্গামারী উপজেলা নির্বাহী অফিসার (ইউএনও) মোঃ গোলাম ফেরদৌস, জেলা লিগ্যাল এইড অফিসার (সিনিয়র সহকারী জজ) মোছাঃ শারমিন আক্তার, নাগেশ্বরী সার্কেলের সহকারী পুলিশ সুপার মোঃ সুমন রেজা, ভূরুঙ্গামারী সার্কেলের সহকারী পুলিশ সুপার মোঃ মোর্শেদুল হাসান পিপিএম, ভূরুঙ্গামারী উপজেলা সবাজসেবা অফিসার মোঃ শামছুজ্জামান, ভূরুঙ্গামারী মহিলা বিষয়ক কর্মকর্তা জয়ন্তী রাণী। অনুষ্ঠানটির সভাপতিত্ব করেন কুড়িগ্রামের পুলিশ সুপার (এসপি) আল আসাদ মো: মাহফুজুল ইসলাম।

জানা গেছে,  সব শ্রেণী পেশার মানুষের নানাবিধ সমস্যা মনোযোগের শোনেন ফৌজদারি বিচার ব্যবস্থার সংশ্লিষ্ঠ অংশীজনবৃন্দ। উপস্থিত অতিথিবৃন্দ ও বিশেষজ্ঞ প্যানেলের অফিসারবৃন্দ সম্মানিত সেবা প্রার্থীদের বক্তব্য শুনে কার্যকরী ব্যবস্থা ও ন্যায্যতার জন্য তাৎক্ষণিক প্রসিকিউশন বা জিডি গ্রহণের উদ্যোগ নেন। কিছু কিছু ক্ষেত্রে সংশ্লিষ্ট সেবা প্রদানকারী অফিসসমূহে সেবা প্রার্থীদের পরবর্তী কার্যক্রমের জন্য রেফার করেন।

কুড়িগ্রামের পুলিশ সুপার (এসপি) আল আসাদ মো: মাহফুজুল ইসলাম বলেন, জমি-জমা ও সম্পর্ক নিয়ে যেসব ফৌজদারী মামলা রুজু হয় তার অধিকাংশই সিভিল স্যুট বা সামাজিক ইস্যু। কিন্তু অনেকেই মাঝে মধ্যে ঘুরিয়ে পেচিয়ে এসব ইস্যুকে যেনতেন ভাবে ফৌজদারী মামলায় রুপান্তর করার অভিপ্রায় লক্ষ্য করা যায়। যা কোন পক্ষের জন্যই মঙ্গলজনক হয় না, বরং বেড়ে যায় ব্যয় ও লেগে যায় অনেক সময়। এমতাবস্থায় ফৌজদারী মামলা হওয়ার উপক্রম হয়েছে এমন সব বিষয়ে নাগরিকদের সময়, অর্থব্যয়, ভিজিট কমাতে এই উদ্দ্যোগ পর্যায়ক্রমে অব্যাহত থাকবে। সংক্রান্তে উপস্থিত সম্মানিত সেবা প্রার্থীদের সদাশয় সরকারের নানাবিধ উন্নয়নের বহুমাত্রিক কার্যক্রম সম্পর্কেও অভিহিত করা হয়।

Please Share This Post in Your Social Media

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

More News Of This Category
© All rights reserved © 2023 English Bangla
Theme Customized BY WooHostBD