1. admin@englishbangla24.com : admin :
ফুলবাড়ীতে স্ত্রী’কে পিটিয়ে হত্যার দায়ে ঘাতক স্বামী বাঁশ ঝাড় থেকে গ্রেপ্তার - English Bangla 24
রবিবার, ২৫ ফেব্রুয়ারী ২০২৪, ০৩:০৬ অপরাহ্ন
শিরোনাম:
সড়কে প্রাণগেলো মাদ্রাসা ছাত্রের লালমনিরহাটে যথাযোগ্য মর্যাদায় ভাষা শহীদদের প্রতি শ্রদ্ধা জ্ঞাপন লালমনিরহাটে মাদক বিরোধী অভিযানে আটক ৫ মোহাম্মদ জমির উদ্দিন এর সংক্ষিপ্ত জীবন বৃত্তান্ত;- আসন্ন দ্বাদশ জাতীয় সংসদ নির্বাচন উপলক্ষে ভোট গ্রহণ কর্মকর্তাগণের প্রশিক্ষণ কর্মশালায় মতিয়ারের নৌকা প্রতিকে ভোট দেয়ার প্রকাশ্যে সমর্থন দিলেন ইস্কন ভক্তরা লালমনিরহাটে হরিজন সম্প্রদায়ের সাথে মতবিনিময় সভা ফুলবাড়িতে স্কুল ছাত্রীকে ধর্ষণের অভিযোগে ধর্ষক গ্রেফতার নৌকাই ভরসা, সেটা মাথায় রাখতে হবে- হাসিনা দ্বাদশ জাতীয় সংসদ নির্বাচনে লালমনিরহাটে পৃথক তিন আসনে ১৯ প্রার্থী ভোটের মাঠে

ফুলবাড়ীতে স্ত্রী’কে পিটিয়ে হত্যার দায়ে ঘাতক স্বামী বাঁশ ঝাড় থেকে গ্রেপ্তার

Reporter Name
  • Update Time : মঙ্গলবার, ১৫ আগস্ট, ২০২৩
  • ২৬৯ Time View


আব্দুর রাজ্জাক রাজ, ফুলবাড়ী (কুড়িগ্রাম)প্রতিনিধিঃ

কুড়িগ্রামের ফুলবাড়ীতে সেই মৌসুমী’র হত্যাকারী ঘাতক স্বামীকে গ্রেপ্তার করেছে ফুলবাড়ী থানা পুলিশ।

তথ্যপ্রযুক্তি ব্যবহার করে সোমবার (১৪ আগস্ট) ভোরে উপজেলার নজরমামুদ এলাকার একটি বাঁশঝাড় থেকে রাশেদকে গ্রেপ্তার করা হয়। প্রাথমিক জিজ্ঞাসাবাদ শেষে আজ দুপুরে তাকে কুড়িগ্রাম কারাগারে পাঠানো হয়েছে। গ্রেপ্তার রাশেদুল ইসলাম (৩০) এ উপজেলার পশ্চিম ধনিরাম গ্রামের তাজুল ইসলামের ছেলে এবং নিহত মৌসুমী খাতুন (২৬) একই উপজেলার পূর্ব ধনিরাম গ্রামের মনছুর আলীর মেয়ে।
এ ঘটনায় নিহত গৃহবধূর চাচা নাসির আলী রবিবার (১৩ আগষ্ট) বিকালে বাদী হয়ে স্বামী, শ্বশুর ও শ্বাশুড়িকে আসামী করে ফুলবাড়ী থানায় হত্যা মামলা দায়ের করেছিলেন । উক্ত মামলার দায়িত্বরত পুলিশ টিম ২৪ ঘণ্টার মধ্যে প্রধান আসামি রাশেদুল ইসলাম কে গ্রেপ্তার করতে সক্ষম হয়েছে । রাশেদুল এর পিতা-মাতা সহ অন্য আসামিদের গ্রেপ্তারের চেষ্টা চলছে।
ফুলবাড়ী থানা পুলিশ জানায়, প্রায় ৫ বছর আগে পশ্চিম ধনিরামের মোঃ রাশেদুল ইসলাম রাশেদ (৩০) ও মেীসুমী একজন আরেকজনকে পছন্দ করলে পবিরার বিষয়টি জানতে পেড়ে তাদের পারিবারিকভাবে বিয়ে দেয় । বিয়ের ২/৩ মাস পরে রাশেদ যৌতক দাবি করলে তার স্ত্রী মৌসুমী খাতুন তার অসুস্থ বাবা ও চাচাকে রাজি করিয়ে এক লক্ষ চল্লিশ হাজার (১,৪০,০০০/-) টাকা এনে দেয় । কিছুদিন যাওয়ার পর রাশেদ ও তার বাবা তাজুল ইসলাম তাকে পুনঃরায় যৌতকের চাপ দেয় । এবং যৌতক এর টাকা না আনায় নিয়মিত মৌসুমীকে নির্যাতন করতেন । তাদের এ বিষয়টি গ্রাম্য আদালতের মাধ্যমে একাধিকবার মীমাংমা করে দেওয়া হয় । মৌসুমী তার জামাই ও শ্বশর-শ্বাশুরীকে তার পরিবারের অবস্থা জানায় এবং তাদের দাবী পূরণ করতে পারবে না বলে ছাব জানিয়ে দেয় । বিয়ের পড় থেকে যৌতকের জন্য এরুপ নির্যাতন মৌমুমী খাতুনের উপর ধারাবাহিকভাবে চলতো ।
নির্যাতনের এমন ধারাবাহিকতায় গত ৮ আগষ্ট সকালে রাশেদ ও তার বাবা-মা মৌসুমীকে বাবার বাড়ী থেকে টাকা আনার জন্য চাপ দিলে মৌসুমী অস্বীকৃতি জানায়। এ নিয়ে কথা কাটাকাটির  এক পর্যায়ে রাশেদ ও তার বাবা-মাকে সাথে নিয়ে মৌসুমীকে বেদম মারধোর করে এবং এতে মৌসুমী গুরুতর আহত হয় । স্থানীয়দের মাধ্যমে খবর পেয়ে মৌসুমীর নানা জহুরুল ইসলাম, নানার ছোট ভাই জাহেদুল ইসলাম ও চাচা নাসির আলী গুরুতর আহত অবস্থায় মৌসুমীকে দেখতে পেয়ে চেয়ারম্যান মহোদয়কে বিষয়টি জানায় । চেয়ারম্যান ঘটনা স্থলে গিয়ে মৌসুমীর অবস্থা খুবেই খারাপ দেখে হাসপাতালে নেওয়ার চাপ দেয় এবং প্রয়োজনীয় ব্যবস্থা গ্রহণ করতে বলে চলে যায় ।
কিন্তু পূর্বের নির্যাতনের অবিজ্ঞতা নিয়ে রাশেদ ও তার বাবা-মা ধামাচাপা দেয় বিষয়টি এবং মৌসুমীর আত্মীয়-স্বজনকে চিকিৎসার প্রতিশ্রুতি দিয়ে কৌশলে তাড়িয়ে দেয় । ৯ আগষ্ট মেীসুমীর আত্মীয়-স্বজন খোঁজ খবর নিয়ে জানতে পারে মৌসুমী বিনা চিকিৎসায় গুরুতর আহত অবস্থায় এখনও বাসায় আছে এবং হাসপাতালে নেওয়ার কোন প্রকার চেষ্টা করেনি । মেীসুমীর আত্মীয়-স্বজন পুনঃরায় চেয়ারম্যানকে বিষয়টি জানায় এবং চেয়ারম্যান মহোদয় নিজেই ব্যবস্থা গ্রহণ করে মৌসুমীকে উদ্ধার করে ফুলবাড়ী হাসপাতালে ভর্তি করেন। ফুলবাড়ী হাসপাতালে চিকিৎসার পর ১১ আগষ্ট পরীক্ষা-নিরীক্ষার জন্য তাকে লালমনিরহাট জেলা সদরে নেয়া হয়। সেখানে পরীক্ষা- নিরীক্ষা শেষে ১২ আগষ্ট বিকাল সাড়ে ৪ টায় আবারও তাকে ফুলবাড়ী হাসপাতালে ভর্তি করা হয়। সেখানে চিকিৎসাধীন অবস্থায় দিবাগত রাত ২ টার দিকে মৃত্যুর কোলে ঢলে পড়েন মৌসুমী খাতুন।

Please Share This Post in Your Social Media

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

More News Of This Category
© All rights reserved © 2023 English Bangla
Theme Customized BY WooHostBD